সংবাদ শিরোনাম
উখিয়ায় বন বিভাগের অভিযানে অবৈধ বালি উত্তোলনের সরঞ্জমাধি উদ্ধারউখিয়ার ডেইলপাড়া করইবনিয়া এলাকা ইয়াবার জোওয়ারে ভাসছেউখিয়ার শীর্ষ ইয়াবা ডন মীর আহম্মদ অধরাহাজীর পাড়ার শীর্ষ ইয়াবা কারবারী মীর আহম্মদকে ধরিয়ে দিনউখিয়ার নুরুল আলমকে গ্রেপ্তারে বেরিয়ে আসবে ইয়াবা ও অস্ত্রসহ গুরুত্বপূর্ণ…থাইংখালী বিট কর্মকর্তার বিরুদ্ধে পাহাড়সম দুর্নীতির অভিযোগউখিয়ায় বন বিভাগের অভিযানে মাটিবর্তী ডাম্পার গাড়ী আটকজালিয়া পালংয়ে ছিনতাইকারীদের হাতে নিঃশ্ব হলেন খামার ব্যবসায়ী – আহত…উখিয়ার শীর্ষ ইয়াবা কারবারী আলী আকবর বিদেশী মদসহ আটকউখিয়ার মুছারখোলা বিট কর্মকর্তা আবছারের নেতৃত্বে পাহাড় কাটা ও বালি…

রোহিঙ্গা ক্যাম্পের ১০৫ জন কর্মচারীর চাকুরি নিশ্চিত

high-court-1_2.jpg

উখিয়া ক্রাইম নিউজ ডেস্ক::

রোহিঙ্গা শরণার্থী ত্রান ও প্রত্যাবাসন কমিশনারের আওতাধীন শরণার্থী ক্যাম্পে বিভিন্ন পদে কর্মরত ১০৫ জন কর্মচারীর চাকুরী স্থায়ী করনের জন্য নির্দেশ দিয়েছেন উচ্চ আদালত। বিচারপতি মোহাম্মদ আশফাকুল ইসলাম ও মোহাম্মদ আলীর সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ বিগত ৫ জুলাই ১২৭৫৫ /২০১৭ ইং রিট পিটিশন শুনানী শেষে আদালত সন্তুষ্ট হয়ে এ রায়ের নির্দেশ প্রদান করেন। রোহিঙ্গা শরণাথী ক্যাম্পে কর্মরত কর্মচারী মোঃ মঞ্জুর আলম মজুমদার বাদী হয়ে ১০৫ জন কর্মচারীর চাকুরী স্থায়ী করনের জন্য করা একটি রিট আবেদনের প্রেক্ষিতে রুলের উপর চুড়ান্ত শুনানী শেষে হাইকোর্ট এ রায় প্রদান করলে ক্যাম্পে কর্মচারীদের মাঝে স্বস্তির নিঃশ্বাস ফিরে আসে। আদালতে রিট আবেদনকারীর পক্ষে ছিলেন, সিনিয়র আইনজীবি ও মোঃ ম্ঈনুল ইসলামসহ ৪ সদস্যর একটি বেঞ্চ।
উল্লেখ্য যে, দীর্ঘ ২৭ বছর ধরে প্রায় দেড়শতাধিক কর্মকর্তা কর্মচারী শরণার্থী ক্যাম্পে রোহিঙ্গাদের মানবিক সেবা দিয়ে আসছিল। গত কয়েক বছর ধরে কোন প্রকার পূর্ব অবহিত ছাড়া বেশ কিছু কর্মচারী ছাটাই করে দিলে অন্যন্যা কর্মচারীদের মধ্যে দেখা দেয় ছাটাই আতংক। এ নিয়ে কর্মচারী সমিতি বিভিন্ন দেনদরবার করেও কোন কাজ না হওয়ায় অবশেষে কর্মচারী সমিতি আদালতের সরনাপূর্ণ হয় ২৪ /৮/২০১৮ইং। অস্থায়ী কর্মকর্তা কর্মচারী সমন্বয় পরিষদের সভাপতি অনুপ বিকাশ চৌধুরী, সাধারন সম্পাদক মোঃ মঞ্জুর আলম মজুমদার চুড়ান্ত রায় প্রকাশের প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে বলেন, হাই কোর্টের যুগান্তকারী এ রায়ের ফলে ক্যাম্পে যুগযুগ ধরে কর্মরত ১০৫টি পরিবার স্বাচ্ছন্দভোদ করছে। নিম্ন শ্রেনীর কর্মচারী মোঃ শাহজান এমএলএসএস বলেন, চাকুরী চলে গেলে ছেলে মেয়ে নিয়ে রাস্তায় নামা ছাড়া আর কোন উপায় ছিলনা। হাইকোর্টের এ রায়ের প্রতি তারা অশেষ কৃতজ্ঞতা জানান।

Share this post

scroll to top