সংবাদ শিরোনাম
উখিয়ার ক্যাম্প থেকে ভাসানচরের উদ্দেশে রওনা হয়েছে রোহিঙ্গাদের বিশাল বহররামু সেনানিবাসে ৪ ইউনিটের পতাকা উত্তোলন করলেন সেনা প্রধানউখিয়ায় একাধিক মামলার আসামি রফিকুল হুদা আটক২ লাখ ৮০ হাজার ইয়াবাসহ মিয়ানমারের ৭ নাগরিক আটককক্সবাজার সড়কে বাস ডাকাতির ঘটনায় গ্রেপ্তার ৬নাইজেরিয়ায় ১১০ কৃষকের গলা কেটে বর্বর হত্যাকাণ্ডউখিয়া প্রেসক্লাব নির্বাচনের প্রার্থীদের তালিকা চুড়ান্ত, বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত ১উখিয়ায় বন বিভাগের অভিযানে অজগর সাপ উদ্ধারউখিয়ায় বন বিভাগের অভিযানে ৪টি অবৈধ ড্রেজার মেশিন ও ১৪টি…রোহিঙ্গা সুরক্ষায় নির্দেশনা অনুযায়ী আদালতে মিয়ানমারের দ্বিতীয় প্রতিবেদন

মাহি ‘চুপ’ হয়ে গেছে

4d2ab932303ae86ee75e27e742b658ba-5ab4d5f9a303c.jpg

উখিয়া ক্রাইম নিউজ ডেস্ক::

তানজিদ সুলতান মাহি (১৪) স্তব্ধ, নির্বিকার। ১০ দিনের মধ্যে সে বাবা ও মাকে হারাল। নেপালে উড়োজাহাজ দুর্ঘটনায় নিহত পাইলট আবিদ সুলতানের স্ত্রী আফসানা খানম আজ শুক্রবার সকাল সাড়ে নয়টার দিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। বাবা-মাকে হারিয়ে তাঁদের একমাত্র ছেলে মাহি ‘চুপ’ হয়ে গেছে।

আফসানার ফুফাতো ভাই খন্দকার রেজাউল করিম প্রথম আলোকে বলেন, ‘মাহি চুপ করে আছে। কাঁদলে মন হালকা হতো।’ তিনি জানান, আবিদের মৃত্যুসংবাদ পেয়েও তাঁর স্ত্রী আফসানা কাঁদেননি। শক্ত হয়ে ছিলেন। মায়ের স্ট্রোকের সময় মাহি পাশে ছিল। এখন ছেলেকে নিয়েই তাঁদের যত চিন্তা।

আফসানা খানমের মৃতদেহ তাঁদের উত্তরার বাসায় নিয়ে যাওয়া হয়েছে। বাদ আসর উত্তরা ১৩ নম্বর সেক্টর জামে মসজিদে আফসানা খানমের জানাজা হবে। তাঁকে স্বামীর পাশেই বনানীর সামরিক কবরস্থানে দাফন করা হবে।

রাজধানীর ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্স ও হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন আফসানা। ওই হাসপাতালের আইসিইউর চিকিৎসা কর্মকর্তা কাজী একরাম হোসেন সাংবাদিকদের জানান, আবিদের স্ত্রীর অবস্থা অবনতির দিকে যাচ্ছিল। আজ সকাল সাড়ে নয়টার দিকে তিনি মারা যান।

সম্প্রতি নেপালে বিধ্বস্ত ইউএস-বাংলা এয়ারলাইনসের উড়োজাহাজটির পাইলট ছিলেন আবিদ। দুর্ঘটনার খবর পেয়ে উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েন তাঁর স্ত্রী আফসানা। প্রথমে তাঁকে বলা হয় আবিদ আহত হয়ে চিকিৎসাধীন। পরে স্বামীর মৃত্যুর খবর শুনে আফসানা ভেঙে পড়েন। মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণে গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েন তিনি। নিউরোসায়েন্স হাসপাতালে তাঁর মাথায় অস্ত্রোপচার হয়েছিল।

আফসানার মস্তিষ্কে দুবার রক্তক্ষরণ (স্ট্রোক) হয়ে ছিল। প্রথমবার ছিল মৃদু, পরেরটি গুরুতর। তাঁর মাথার খুলির একটি অংশ খুলে রাখা হয়েছিল। এভাবেই তাঁর চিকিৎসা চলছিল।

Share this post

scroll to top