সংবাদ শিরোনাম
নিষিদ্ধ এনজিও ‘আল মারকাজুল ইসলামী’র নির্মিত ১৮ রোহিঙ্গা বসতি উচ্ছেদগরু চুরির অপবাদ, মাথা ন্যাড়া করে নির্যাতনের ঘটনায় ৫ আসামী…উখিয়ার কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্পে দু’গ্রুপে সংঘর্ষউখিয়ার জামতলী শফি উল্লাহ কাটা ক্যাম্প বাজারের খাস কালেকশনের নামে…থাইংখালীতে সরওয়ারের নেতৃত্বে সরকারি বনভুমিতে নির্মিত হচ্ছে স্থাপনামানবপাচারকারী জালাল জুতার মালা ও কোদাল দিয়ে মাথার চুল উপড়িয়ে…থাইংখালীতে সরওয়ারের নেতৃত্বে সরকারি বনভুমিতে নির্মিত হচ্ছে স্থাপনাকক্সবাজারে গণবদলির পর নতুন ওসি-এসআইসহ ৩৭ জনকে পোস্টিংকক্সবাজার থেকে শীর্ষ কর্মকর্তাসহ পুলিশের ১৩৪৭ সদস্য বদলিরোহিঙ্গাদের বাংলাদেশী জাতীয় পত্র বানিয়ে দিচ্ছে একটি সিন্ডিকেট, জড়িত শিক্ষক…

উখিয়ায় স্কুল ছাত্রীকে শ্লীতাহানির চেষ্টাঃ থানায় এজাহার

pic-1.jpg

উখিয়া ক্রাইম নিউজ ডেস্ক::

উখিয়ায় এক স্কুল ছাত্রীকে শ্লীতাহানির চেষ্টা চালিয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ২৬ মার্চ সকাল সাড়ে ১২টার দিকে ঘটনাটি ঘটেছে।
থানায় দায়েরকৃত এজাহার সূত্রে ও অনুসন্ধানে জানা যায়, উপজেলার রাজাপালং ইউনিয়নের হাজির পাড়া গ্রামের মৃত ছৈয়দ আকবরের উখিয়া মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ২য় শ্রেনীর ছাত্রী সালমা (৮) ২৬ মার্চ মহান স্বাধীনতা দিবসের অনুষ্টান শেষে বাড়ীতে ফেরার পথে একই এলাকার মৃত উলা মিয়ার ছেলে এলাকার চিহ্নিত লম্পট মোঃ হোছন প্রকাশঃ ডর পুতুইন্নার বাড়ীর সামনে পৌছলে গতিরোধ করে স্কুল ছাত্রী সালমা আকতারকে ২ টাকা হাতে ধরিয়ে দিয়ে বলে তোমার জন্য বাসায় আরো ৫ টাকা রেখেছি। বাড়ীতে এসে টাকা গুলো নিয়ে যাও। এর সূত্র ধরে সালমা আক্তার ৫ টাকার জন্য বাড়ীতে আসলে তার হাত ধরে তাকে বাড়ীর পিছনে টয়লেটের ভিতরে নিয়ে গিয়ে জোর পূর্বক ধর্ষনের চেষ্টাকালে স্কুল ছাত্রীর শোর চিৎকারে পাশর্^বর্তী লোকজন এগিয়ে এসে স্কুল ছাত্রীকে লম্পট ধর্ষকের কবল থেকে উদ্ধার করে উখিয়া হাসপাতালে ভর্তি করেন। কর্তব্যরত চিকিৎসক স্কুল ছাত্রী আশংকাজনক দেখে তাকে জেলা সদও হাসপাতালে রেফার করেন বলে তিনি জানান। পরে স্কুল ছাত্রীর হতদরিদ্র পিতা তার মেয়েকে হাতিয়ে নিয়ে সু–বিচারের আশায় ছুটে যান স্থানীয় ইউপি সদস্য আব্দুল হকের নিকট। তিনি চকিদারের মাধ্যমে তাকে বিচারে হাজির হওয়ার জন্য নির্দেশ দিলেও হতাভাগা স্কুল ছাত্রীর পিতা চকিদারের ডাক খরচ দিতে পারেনিই বলে দুই দিনের মাথায়ও তার মেয়ে শ্লীতাহানির বিচার হয়নি। পরে ২৭ মার্চ স্কুল ছাত্রীর পিতা হাফিজ উল্লাহ বাদী হয়ে ডর পুতুইন্নাকে প্রধান আসামী করে উখিয়া থানায় একটি লিখিত এজাহার দায়ের করেন। স্কুল ছাত্রীর পিতা প্রতিবেদককে অভিযোগ করে বলেন, আমি আমার মেয়ের শ্লীতাহানির বিচারের জন্য থানার আশ্রয় নিলে আমাকে থানাকে থেকে মামলা তোলে নেওয়ার জন্য প্রতিনিয়ত হত্যার হুমকি ধমকি দিচ্ছে বলে তিনি জানান। তিনি আরো বলেন, আগামী এক সাপ্তাহের মধ্যে থানা থেকে মামলা তোলে না নিলে তার বসতঘর ভেঙ্গে গুড়িয়ে দিয়ে তাকে এলাকা ছাড়া করা হবে মর্মে হুংকার দিচ্ছে বলেও তিনি জানান। তাই তিনি তার ও পরিবারের নিরাপত্তা চেয়ে জেলা পুলিশ সুপারের হস্তক্ষেপ কামনা করেন।
এব্যাপারে উখিয়া থানার ওসি(তদন্ত) মাকসুদুল আলম এধরনের একটি এজাহার হাতে পেয়েছি। তবে তদন্ত পূর্বক ঘটনার সাথে জড়িতর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে তিনি জানান।

Share this post

scroll to top