উখিয়ার মধুর ছড়া রোহিঙ্গা বস্তি ১০ অস্ত্রধারীর হাতে জিম্মি – প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা

pic-11.jpg

উখিয়া ক্রাইম নিউজ ডেস্ক::

মিয়ানমার জান্তা বাহিনীর হাতে নির্মম ভাবে অত্যাচার ও নির্যাতনের শিকার হয়ে বাংলাদেশের উখিয়ার পালংখালী, বালুখালী, থাইংখালী, কুতুপালং ও মধুর ছাড়া রোহিঙ্গা বস্তিতে আশ্রয় নিয়ে বাংলাদেশ সরকারের মানবতার মা নামে খ্যাত জননেত্রী শেখ হাসিনার সার্বিক সহযোগিতায় দিনাতিপাত করে আসছে বলে জানা গেছে।

অনুসন্ধানে জানা যায়, মিয়ানমার ভিত্তিক নাসাকা বাহিনীর হাতে নিপীড়িত ও নির্যাতিত রোহিঙ্গাদেরকে বাংলাদেশের ভুখন্ডে আশ্রয় দিয়ে বাংলাদেশ সরকারের সফল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সারা বিশ্বে সুনাম অর্জন করেছেন। প্রধানমন্ত্রীর উক্ত সুনাম ক্ষুন্ন করার লক্ষে বিএনপি জামায়াতের চিহ্নিত অস্ত্রধারীরা উখিয়ার মধুরছড়া রোহিঙ্গা ক্যাম্পে বসবাসরত রোহিঙ্গাদেরকে মধুরছড়া সংলগ্ন জারাইলতলীর আগা নামক স্থানে তেলখোলা এলাকার মোঃ হোছনের পুত্র বর্তমানে দোছড়ি এলাকায় অবস্থানরত চিহ্নিত মাদক সম্রাট, অস্ত্রধারী ও একাধিক মামলার আসামী আমির হামজার নেতৃত্বে মৃত জব্বর আলীর পুত্র জাফর আলম, কবির আহম্মদের পুত্র আমিন, মীর আহম্মদের পুত্র সফি উল্লাহ, মৃত আবু তারেকের পুত্র ফারুক, বশরের পুত্র নুরুল আমিন, মৃত বদিউর রহমানের পুত্র নাছির উদ্দিন, হাফেজ আহম্মদের পুত্র ইসমাঈল, জানে আলমের পুত্র নুর মোহাম্মদ, মৃত কাশেম আলীর পুত্র গোরা মনিয়াসহ উল্লেখিত অস্ত্রধারীরা দিবারাত্রি উক্ত নিরহ ও নিপীড়িত রোহিঙ্গাদেরকে জিম্মি করে তাদের ত্রানের মালামাল লুঠসহ টাকা পয়সা ছিনিয়ে নিচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। ভুক্তভোগী রোহিঙ্গা জাহেদ আলম কান্না জড়িত কন্ঠে অভিযোগ করে বলেন, আমরা ত্রান কেন্দ্র থেকে ত্রান নিয়ে বস্তিতে আসার পথে ত্রানের মালামাল লুঠপাট ও রান্নাবান্নার জন্য লাকড়ি নিয়ে আসার সময় আমাদেরকে গতিরোধপূর্বক অস্ত্রের মূখে জিম্মি করে টাকা আদায় করে থাকে। যদি আমরা তাদের চাহিদামত চাঁদার টাকা পরিশোধ করতে না পারি তাহলে আমাদেরকে শারিরীক ও মানষিক ভাবে চরম অত্যাচার ও নির্যাতন চালিয়ে থাকে। তাই আমরা উক্ত অস্ত্রধারীদের কবল থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য জেলা পুলিশ সুপার ও সরকারের সহযোগিতা কামনা করি। উখিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক ও ইউপি চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর কবির চৌধুরী ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেন এবং সংশ্লিষ্ট প্রশাসনকে তদন্তপূর্বক উক্ত অস্ত্রধারীদেরকে গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় নিয়ে আসার জন্য অনুরোধ জানান।
উখিয়া থানার ওসি মোঃ আবুল খায়ের বলেন, তদন্তপূর্বক উক্ত সন্ত্রাসীদেরকে আইনের আওতায় নিয়া আসা হবে বলে তিনি জানান।

Share this post

scroll to top