সংবাদ শিরোনাম
উখিয়ার ক্যাম্প থেকে ভাসানচরের উদ্দেশে রওনা হয়েছে রোহিঙ্গাদের বিশাল বহররামু সেনানিবাসে ৪ ইউনিটের পতাকা উত্তোলন করলেন সেনা প্রধানউখিয়ায় একাধিক মামলার আসামি রফিকুল হুদা আটক২ লাখ ৮০ হাজার ইয়াবাসহ মিয়ানমারের ৭ নাগরিক আটককক্সবাজার সড়কে বাস ডাকাতির ঘটনায় গ্রেপ্তার ৬নাইজেরিয়ায় ১১০ কৃষকের গলা কেটে বর্বর হত্যাকাণ্ডউখিয়া প্রেসক্লাব নির্বাচনের প্রার্থীদের তালিকা চুড়ান্ত, বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত ১উখিয়ায় বন বিভাগের অভিযানে অজগর সাপ উদ্ধারউখিয়ায় বন বিভাগের অভিযানে ৪টি অবৈধ ড্রেজার মেশিন ও ১৪টি…রোহিঙ্গা সুরক্ষায় নির্দেশনা অনুযায়ী আদালতে মিয়ানমারের দ্বিতীয় প্রতিবেদন

ইনানী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের খেলার মাঠ দখলকে কেন্দ্র করে প্রধান শিক্ষককে হত্যার হুমকি – থানায় অভিযোগ

download.jpg

উখিয়া ক্রাইম নিউজ ডেস্ক::

কক্সবাজার জেলার ঐতিহ্যবাহী বিদ্যাপীঠ উখিয়ার ইনানী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছাত্র- ছাত্রীদের বিনোদনের একমাত্র খেলার মাঠটি দীর্ঘ দিন ধরে জবর দখল করতে মরিয়া হয়ে উঠেছে এলাকার চিহ্নিত ভুমিদস্যুরা। ঘটনাটি ঘটেছে বুধবার বিকাল ৫ টার দিকে।

সরজমিন ঘুরে জানা যায়, উপজেলার জালিয়াপালং ইউনিয়নের সুনামধন্য শিক্ষা প্রতিষ্টান ইনানী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাঠটি বড় ইনানী গ্রামের মৃত বদিউর রহমানের পুত্র এলাকার চিহ্নিত ভুমিদস্যু নুরুল হক আনসারীর নেতৃত্বে মিজানুর রহমান, নুরুল আজিম, ফাতেমা ইয়াছমিন ও রশিদ আহম্মদসহ শীর্ষরা অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে পূর্ব পরিকল্পিত ভাবে নীল নকশা বাস্তবায়নের লক্ষে ছাত্র- ছাত্রীদের একমাত্র বিনোদনের খেলার মাঠটি জোরপূর্বক জবর দখল করে মাঠের মাঝখান দিয়ে সড়ক নির্মান করে যাচ্ছে বলে জানা গেছে। খবর পেয়ে স্কুলের প্রধান শিক্ষক শমসের আলম বাধা প্রধান করিলে উল্লেখিত অস্ত্রধারীরা প্রধান শিক্ষককে হত্যার উদ্দেশ্য এগিয়ে আসলে পার্শ্ববর্তী লোকজন দেখে দ্রুত প্রধান শিক্ষককে অস্ত্রধারীর কবল থেকে উদ্ধার করে বলে জানা যায়। উক্ত ঘটনাকে কেন্দ্র করে শমসের আলম বাদী হয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ নিকারুজ্জামানের নিকট ও উখিয়া থানায় পৃথক অভিযোগ দায়ের করেন। ইনানী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শমসের আলম জানান, নুরুল হক আনসারী একটি স্কুলের শিক্ষক, শিক্ষক হয়ে কি ভাবে একটি শিক্ষা প্রতিষ্টানের খেলার মাঠ দখল করে এটা বড় ধরনের লজ্জাজনক ব্যাপার। আমি মাঠ দখলের কাজে বাধা দেওয়ায় আমাকে বর্তমানে হত্যা করে লাশ ঘুম করার ভয়ভীতিও প্রদর্শন করছে। তাই আমি আমার জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে জেলা পুলিশ সুপারের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।
স্কুল পরিচালনা কমিটির সভাপতি আদনান চৌধুরী বলেন, নুরুল হক আনসারী এলাকার একজন চিহ্নিত ভুমিদস্যু। তাকে গ্রেপ্তার পূর্বক কঠিন শাস্তির আওতায় নিয়ে আসার জন্য জেলা পুলিশ সুপার ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার হস্তক্ষেপ কামনা করছি। এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ নিকারুজ্জামান বলেন, আমি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি, স্কুল মাঠ দখল করে কোন প্রকার সড়ক নির্মান বা কোন কাজ করা হলে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে তিনি জানান।

Share this post

scroll to top