উখিয়ায় ওয়ালা বিট কর্মকর্তার বিরুদ্ধে সরকারি বন ভুমি বিক্রির অভিযোগ

images.jpg

উখিয়া ক্রাইম নিউজ ডেস্ক::

কক্সবাজার দক্ষিন বন বিভাগের উখিয়া রেঞ্জের আওতাধীন ওয়ালা বন বিট কর্মকর্তার বিরুদ্ধে সরকারি বন ভুমির জায়গা ও কাঠ চোরদের সাথে আতাঁত করে সামাজিক বনায়নের গাছ বিক্রিসহ পাহাড়সম অনিয়ম ও দুনীর্তির পাশাপাশি লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নেওয়ার ব্যাপক অভিযোগ উঠেছে।

অনুসন্ধানে জানা যায়, ওয়ালা বিট কর্মকর্তা ফেরদৌস আলম ওয়ালা বিট কর্মকর্তা হিসাবে যোগদান করার পর থেকে এলাকার চিহ্নিত কাঠ চোরদের সাথে আতাঁত করে বিটের জামতলী বাগান, রেঞ্জ অফিস সংলগ্ন জাম বাগান, আমতলী, উত্তর পুকুরিয়া এলাকার সরকারি গাছ বিক্রি ও বন ভুমি বিক্রি করে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়ে রাতারাতি আঙ্গুল ফুলে কলা গাছে পরিনত হয়েছে বলে জানা গেছে।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, সাপ্তাখানিক আগে ওয়ালা বিট কর্মকর্তা ফেরদৌস আলম উত্তর পুকুরিয়া এলাকার মৌলভী অছিউর রহমানের পুত্র রুবেলকে ষ্টাম মূলে সরকারি বন ভুমির জায়গা দলিল করে দেওয়ার কথা বলে ২ লাখ ৩৩ হাজার টাকা আদায় করেছে বলে জানা যায়।

অপর দিকে উখিয়া রেঞ্জ অফিস সংলগ্ন জামবাগান এলাকায় বসবাসরত হোসাইন আহম্মদের পুত্র চিহ্নিত ভুমিদস্যু জাকির হোসনের সাথে আতাঁত করে ছয়তারা অটো রাইচ মিলে কর্মরত নুরুল ইসলামের পুত্র ইদ্রিসকে উখিয়া রেঞ্জ অফিস সংলগ্ন জামবাগান থেকে ২ লাখ ৬০ হাজার টাকা দিয়ে সরকারি বন ভুমি বিক্রি করে বলে সূত্রে জানা গেছে। উত্তর পুকুরিয়া এলাকার রুবেলের নিকট জানতে চাইলে সে বিট কর্মকর্তার নিকট থেকে সরকারি বন ভুমি ক্রয়ের কথা স্বীকার করেন।

স্থানীয় সচেতন মহলরা বলেন, সরকারি বন সম্পদ রক্ষক যদি বক্ষকে পরিনত হয়, সে ক্ষেত্রে এ বন সম্পদ রক্ষা করবে কে। তাই অতি শিঘ্রই ওয়ালা বিটের দুর্ণীতিবাজ বিট কর্মকর্তাকে বিভাগীয় তদন্ত কমিটি গঠন পূর্বক কঠিন শাস্তির আওতায় নিয়ে আসার জন্য বন প্রশাসনের প্রতি অনুরোধ জানাচ্ছি। অভিযুক্ত বিট কর্মকর্তা মোঃ ফেরদৌস আলমের নিকট জানতে চাইলে, তিনি তার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ সম্পূর্ণ অস্বীকার করেন। উখিয়া রেঞ্জের দায়িত্ব প্রাপ্ত সহকারী বন সংরক্ষক তরিকুর রহমান তদন্ত পূর্বক জড়িত বিট কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে তিনি জানান।

Share this post

scroll to top