উখিয়ার পালংখালীতে ৪০ শতক জমির দখল নিয়ে রক্তক্ষয় সংঘর্ষের আশংকা

pic-1-4.jpg

উখিয়া ক্রাইম নিউজ ডেস্ক::

উখিয়ার পালংখালীতে কবলামুলে খরিদকৃত ৪০ শতক জমির দখল হস্তান্তর না করে উপরন্ত জমিক্রেতা কে ভয়ভীতি প্রদর্শন করে আসছে প্রতিপক্ষ প্রভাবশালী মহল। এঘটনা নিয়ে উপজেলা ভুমি প্রশাসন সরজমিন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে জমি ক্রেতা রশিদ আহম্মদকে জমির দখল বুঝিয়ে দেওয়ার প্রতিবেদন দাখিল করলেও তা মানা হচ্ছে না। ফলে উক্ত জমি নিয়ে দুপক্ষের মধ্যে চরম উত্তেজনা দেখা দিয়েছে।
উখিয়া উপজেলা ভুমি অফিসের তৎকালিন কানুনগো মিলন কান্তি চাকমা স্বাক্ষরিত প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে মৃত হাজী আব্দুল খালেকের ছেলে আব্দুর রশিদ পালংখালী মৌজা ২৮৩ নাম্বার খতিয়ানে রেকডিয় মালিক ছমিউদ্দিনের ওয়ারিশ জাকির হোছনের নিকট থেকে ১৯৯৩ ইং সনের ৩ জুন ২৪৪ নং কবলামুলে ৪০ শতক জমি ক্রয় করে যতাসময়ে জমির খতিয়ান সৃজন করেন। কিন্তু প্রতিপক্ষ মৃত ছমিউদ্দিনের ছেলে জাগির হোসেন শঠামির আশ্রয় নিয়ে ও প্রভাব বিস্তার করে বিক্রিত জমি দখল হস্তান্তর না করে নিজেরাই চাষাবাদ করে দখল ভোগ করে আসছে। প্রতিবেদনে মামলার বাদী আব্দুর রশিদকে আইনের আশ্রয় নেওয়া পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। এ প্রসংঘে আব্দুর রশিদ স্থানীয় সাংবাদিকদের জানান, উক্ত জমিতে চাষাবাদ করতে গেলে প্রতিপক্ষরা দা, কিরিচ, লোহার রড নিয়ে হত্যার উদ্দেশ্য প্রতিপক্ষরা জমিতে মহড়া চালায়। যার ফলে ক্রয়কৃত সম্পত্তি ভোগকরা সম্ভব হচ্ছে না। উপরোন্ত প্রতিপক্ষের হামলা থেকে নিজেকে রক্ষার জন্য নিজ বাড়ীতে আশা যাওয়া করতেও শংকাবোধ করতে হচ্ছে। এ বিষয়টি নিয়ে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভুমি) একরামুল ছিদ্দিকের সাথে আলাপ করা হলে তিনি বলেন, আব্দুর রশিদের মালিকানাধীন ওই জমি উদ্ধার করতে হলে তাকে আইনের আশ্রয় নিতে হবে। এ ব্যাপারে আব্দুর রশিদ বাদী হয়ে গতকাল সোমবার উখিয়া থানায় একটি লিখিত অভিযোগ করেছে। ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, এ জমি নিয়ে খুন জখমের আশংকা দেখা দিয়েছে।

Share this post

scroll to top