উখিয়ায় প্রেমিকের বাড়ী থেকে প্রেমিকাকে গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার

pic-1-5.jpg

উখিয়া ক্রাইম নিউজ ডেস্ক::

উখিয়ায় প্রেমিকের বাড়ী থেকে প্রেমিকাকে গুরুতর আহত অবস্থায় গ্রামবাসী উদ্ধার করে উখিয়া সদর হাসপাতালে ভর্তি করেছে। ঘটনাটি ঘটেছে গতকাল মঙ্গলবার বিকাল ৪টার দিকে হলদিয়াপালং ইউনিয়নের দক্ষিন হলদিয়া গ্রামে। আহত প্রেমিকা রেহেনা আকতার রাজাপালং ইউনিয়নের খয়রাতি পাড়া গ্রামের নাজির হোসনের মেয়ে। সে সাংবাদিকদের জানায় দক্ষিন হলদিয়া গ্রামের প্রতারক আব্দুল জাহেরের সাথে তার পূর্ব পরিচয় সুবাদে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে গত সোমবার সকালে কক্সবাজার নিয়ে যায়। সেখানে আলমগীর গেষ্ট হাউস নামের একটি হোটেল কক্ষে তার সাথে অভিনব প্রতারনার মাধ্যমে ১০ হাজার টাকা, ২ ভরিস্বর্ণলংকার ও ৮ হাজার টাকা মূল্যের ১টি মোবাইল সেট হাতিয়ে নিয়ে প্রতারক রমজান আলী সটকে পড়ে। এদিকে প্রেমিকা রেহেনা আকতার সারা দিন তার জন্য অপেক্ষা করে না পেয়ে অবশেষে সন্ধার দিকে রমজান আলীর বাড়ীতে চলে আসে। সেখানে রেহেনা রাতভর বাড়ীর ওঠানে নির্ঘম রাত কাঠিয়ে সকাল হলেও পরিবারের কেউ তার সাথে কথা বলেনি। সকাল ১০টার দিকে রেহেনা তার টাকা পয়সা স্বর্ণলংকার ফেরত চাইলে রমজান আলীর মা সফুরা খাতুন তার পিতা আব্দুল জাহের রেহেনাকে পৈচাষিক ভাবে মারধর করে দিন রাত ২৪ ঘন্টা অভুক্ত রেহেনার উপর এহেন নির্যাতন দেখে শতশত গ্রামবাসী হতভাগ হয়ে পড়ে। স্থানীয় প্রত্যক্ষদর্শী কলেজ ছাত্র ভুট্রো বড়–য়া এঘটনার সত্যতা স্বীকার কওে রমজান আলী পরিবারের বিচার দাবী করেন। স্থানীয় ইউপি সদস্য সরওয়ার কামাল বাদশা জানান, মেয়ে পক্ষদের আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য পরামর্ষ দেওয়া হয়েছে। গ্রামবাসী জানান, রমজান আলী একজন পেশাদার ইয়াবা পাচারকারী। ইয়াবা পাচার মামলায় সে দীর্ঘদিন কারাভোগ করার পর গত দুই মাস আগে জামিনে মুক্ত হয়েছে। রেহেনার পিতা নাজির হোসেন জানান, তার মেয়েকে অপহরন স্বর্ণলংকার ছিনতাই ও নির্যাতনের দায়ে থানায় মামলা করার প্রস্তুতি নিচ্ছে।

Share this post

scroll to top