উখিয়ায় রোহিঙ্গা মানব ও মাদক পাচারকারী আটক

-1.jpg

উখিয়া ক্রাইম নিউজ ডেস্ক::

মিয়ানমার থেকে ১৯৯১ সালে পালিয়ে এসে সে সময়ের উখিয়ার গভীর অরণ্যে বর্তমানে রোহিঙ্গা অধ্যুষিত জনপদ লম্বাশিয়া গ্রামে একটি কুড়ে ঘর তৈরি করে বসবাস শুরু করে। সেখান থেকে ইয়াবা ও মানব পাচার করে কোটিপতির খাতায় নাম লিখিয়েছেন রাখাইন রাজ্যের মংডু টাউন শীফের আওতায় নাইসাদং গ্রামের বাসিন্দা হারুনুর রশিদ প্রকাশ লাদেন। সে লম্বাশিয়া রোহিঙ্গা ক্যাম্পের ব্লক নং ই, শেড নং ৬৭ তে বসবাস করছে মর্মে খাতা কলমে লিপিবদ্ধ থাকলেও মূলত সে বসবাস করছে লম্বাশিয়ায় বন ভুমি দখল করে গড়ে তোলা বহুতল ভবনে। স্থানীয়রা জানান, সে দীর্ঘ দিন যাবত সাগর পথে মালেশিয়ায় মানব পাচার ও ইয়াবা পাচার করে বর্তমানে কোটি কোটি টাকার মালিক বনে গেছে। তার কথায় উঠে বসে লম্বাশিয়ার সমস্ত রোহিঙ্গা নাগরিক। থানা সূত্রে জানা গেছে, তার বিরুদ্ধে পুলিশ বাদী হয়ে মানব ও মাদক পাচারের অভিযোগে দুটি মামলা রুজু করার পর থেকে সে আত্নগোপন করে। লম্বাশিয়া রোহিঙ্গা ক্যাম্পের বদিউল আলমের ছেলে হারুনুর রশিদ লাদেনকে গ্রেপ্তারের জন্য পুলিশ বেশ কয়েকবার অভিযান চালিয়ে ব্যর্থ হয়। উখিয়া থানার সহকারী উপ- পরিদর্শক বিলাশ সরকার জানান, লাদেনকে গ্রেপ্তারের জন্য শনিবার রাত ২টা থেকে সাদা পোষাকে একদল পুলিশ তার বাড়ীর চারপাশে উৎপেতে অবস্থান করছিল। ভোর রাত ৪ টার দিকে লাদেন তার আলিশান বাড়ীতে প্রবেশ করার সাথে সাথে পুলিশ ঝাপিয়ে পড়ে লাদেনকে আটক করে। উখিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আবুল খায়ের জানান, আদালত তার বাড়ীর মালামাল জব্দ করার নিদের্শ দিয়েছে।

Share this post

scroll to top