সংবাদ শিরোনাম

সীমান্তের ইয়াবা ডন আতাউল্লাহকে ধরিয়ে দিন

000000000000000000000000.jpg

উখিয়া ক্রাইম নিউজ ডেস্ক::

আসন্ন নির্বাচনকে সামনে রেখে উখিয়া – টেকনাফ সীমান্তের শীর্ষ ইয়াবা ডন আতাউল্লাহ ফের বেপরোয়া হয়ে উঠেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। সংশ্লিষ্ট আইনপ্রয়োগকারী সংস্থার লোকজন দেশে একটি সুষ্ট ও গ্রহনযোগ্য নির্বাচন উপহার দেওয়ার লক্ষে ব্যস্ত থাকার সুবাদে রাজাপালং ইউনিয়নের খয়রাতি পাড়া গ্রামের আলী আহম্মদের ছেলে আন্ডার গ্রাউন্ডে থাকা শীর্ষ ইয়াবাকারবারী আতাউল্লাহ থাইংখালী সীমান্তের তেলখোলা সড়ক দিয়ে দোছড়ি হয়ে খয়রাতি পাড়াস্থ তার বাড়ীতে হাড়িহাড়ি ইয়াবা মজুদ করে ওইখান থেকে তার সিন্ডিকেটের মাধ্যমে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে পাচার করে হাতিয়ে নিচ্ছে কোটি কোটি টাকা। কিন্তু দেখার কেউ নেই।
খয়রাতি পাড়া গ্রামের ছমি উদ্দিন, আব্দুস ছালাম ও নবী হোসেন জানান, আতাউল্লাহ এক সময়ের কাঠুরিয়া থেকে গরু ব্যবসায় জড়িয়ে পড়ার পাশাপাশি মিয়ানমার সীমান্ত এলাকার তুমব্রু গ্রামের শীর্ষ ইয়াবা আরদদার শাহ আলম ও পুতিয়ার সাথে গভীর সখ্যতা গড়ে তোলে ইয়াবা ব্যবসার সাথে জড়িয়ে পড়ে উখিয়া সীমান্ত এলাকায় বৃহত্তর সিন্ডিকেট গড়ে তোলে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে হাড়িহাড়ি ইয়াবা পাচার করে শূণ্যে থেকে কোটিপতির খাতায় নাম লিখিয়েছেন। গত ২৫ আগস্ট মিয়ানমার জান্তা বাহিনীর নির্যাতন নিপীড়নের শিকার হয়ে সে দেশের শীর্ষ ইয়াবাকারবারী শাহ আলম ও পুতিয়া বাংলাদেশে অনুপ্রবেশ করে ক্যাম্প ৭ কুতুপালংয়ে নামে থাকলেও তারা রোহিঙ্গা হত্যাকারী নামে পরিচিত কুতুপালং গ্রামের নুরুল কবির প্রকাশ দাড়ী ভুট্রোর ভাড়া বাসায় বসে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে পাচার করছে লাখ লাখ পিস ইয়াবা। হাতিয়ে নিচ্ছে কোটি কোটি টাকা। কিন্তু দেখার কেউ নেই। ১১ ডিসেম্বর বিকালে ২৪৬৮ পিস ইয়াবাসহ একই ক্যাম্পের আবুল বশরের ছেলে আব্দুর রহমান উখিয়া থানা পুলিশের হাতে আটক হলেও উক্ত ইয়াবার সাথে জড়িত গডফাদার আতাউল্লাহ, শাহ আলম, বাবুল ও পুতিয়া অল্পের জন্য পুলিশি গ্রেপ্তারের কবল থেকে রক্ষা পেয়েছে বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন। স্থানীয় সচেতন মহল জানান, অচিরেই উল্লেখিত ইয়াবা গডফাদারদের গ্রেপ্তার পূর্বক ক্রসফায়ারের আওতায় নিয়ে আসার জন্য জেলা পুলিশ সুপার ও র‌্যাব ৭ কক্সবাজারের হস্তক্ষেপ কামনা করছি। অন্যতায় ছাত্র, যুবসমাজ ও দেশকে মাদকের ভয়াল থাবা থেকে কখনো রক্ষা করা সম্ভব হবে না।

Share this post

scroll to top