সংবাদ শিরোনাম
উখিয়ার ক্যাম্প থেকে ভাসানচরের উদ্দেশে রওনা হয়েছে রোহিঙ্গাদের বিশাল বহররামু সেনানিবাসে ৪ ইউনিটের পতাকা উত্তোলন করলেন সেনা প্রধানউখিয়ায় একাধিক মামলার আসামি রফিকুল হুদা আটক২ লাখ ৮০ হাজার ইয়াবাসহ মিয়ানমারের ৭ নাগরিক আটককক্সবাজার সড়কে বাস ডাকাতির ঘটনায় গ্রেপ্তার ৬নাইজেরিয়ায় ১১০ কৃষকের গলা কেটে বর্বর হত্যাকাণ্ডউখিয়া প্রেসক্লাব নির্বাচনের প্রার্থীদের তালিকা চুড়ান্ত, বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত ১উখিয়ায় বন বিভাগের অভিযানে অজগর সাপ উদ্ধারউখিয়ায় বন বিভাগের অভিযানে ৪টি অবৈধ ড্রেজার মেশিন ও ১৪টি…রোহিঙ্গা সুরক্ষায় নির্দেশনা অনুযায়ী আদালতে মিয়ানমারের দ্বিতীয় প্রতিবেদন

বালুখালী সীমান্তের ইয়াবাকারবারী আলাউদ্দিন ফের বেপরোয়া

pic-ukhiya-1.jpg

উখিয়া ক্রাইম নিউজ ডেস্ক::

উখিয়ার বালুখালী, ধামনখালী, রহমতেরবিল সীমান্ত, বালুখালী রোহিঙ্গা বস্তির ক্যাম্প ভিত্তিক ইয়াবা ব্যবসা, রোহিঙ্গাদের ত্রান ছিনতাইসহ নানা অপরাধজনক কর্মকান্ডের অন্যতম গডফাদার আলাউদ্দিন ফের বেপরোয়া হয়ে উঠেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। সে পশ্চিম বালুখালী গ্রামের আলী আহম্মদের ছেলে বলে জানা গেছে।
এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, আলাউদ্দিন পুলিশ হওয়ার সুবাদে ও ক্ষমতার অপব্যবহার করে সম্প্রতি ইয়াবার বৃহত্তর চালান নিয়ে বাশঁখালী থানা পুলিশের তৎকালিন সহকারী উপ-পরিদর্শক আনোয়ারের হাতে পুলিশ কনষ্টেবল আলাউদ্দিন গ্রেপ্তার হয়ে দীর্ঘদিন চট্রগ্রাম জেল হাজত শেষে চাকুরীচ্যুত হয়ে নিজ গ্রাম বালুখালীতে ফিরে এসে ফের বালুখালী রোহিঙ্গা বস্তির শীর্ষ ইয়াবাকারবারীদের সাথে আতাঁত করে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে হাড়িহাড়ি ইয়াবা পাচার করে যাচ্ছে বলে ব্যাপক অভিযোগ উঠেছে।
বালুখালী গ্রামের আবুছিদ্দিক জানান, পাশর্^বর্তী মিয়ানমারের শীর্ষ ইয়াবাকারবারী নজিবুল হক, চিকুইন্ন, সিরাজসহ শীর্ষদের সাথে গভীর সখ্যতা গড়ে তোলার পাশাপাশি এলাকার উঠতি বয়সী যুবকদেরকে রাতারাতি কোটিপতি হওয়ার স্বপ্ন দেখিয়ে বৃহত্তর সিন্ডিকেট তৈরি করে সারা দেশ ব্যাপী লাখ লাখ পিস ইয়াবা পাচার করে গড়ে তোলেছে কালো টাকার পাহাড়। উক্ত কালো টাকার পাহাড় দিয়ে সে নামে বেনামে ঢাকা, চট্রগ্রাম, সিলেট ও কক্সবাজার মতো গুরুত্ব পূর্ণ শহরে কোটি কোটি টাকার সম্পদ ক্রয় করেছে। তিনি আরো জানান, সম্প্রতি আলাউদ্দিন সিন্ডিকেট ও ছৈয়দ নুর সিন্ডিকেটের মধ্যে রোহিঙ্গাদের ত্রান ক্রয় বিক্রয় নিয়ে রক্তক্ষয় সংঘর্ষের আশংকাও দেখা দিয়েছি। পরে তাৎক্ষনিক ঘটনান্থলে পুলিশ উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে সক্ষম হয়েছে। বর্তমানেও আলাউদ্দিন পুলিশের নাম ব্যবহার করে রোহিঙ্গাদের ত্রানের চাউল ক্রয়ের নামে লুঠপাটের উৎসব চলছে। কিন্তু দেখার কেউ নেই।
স্থানীয় সচেতন মহলরা বলেন, ইয়াবা আলাউদ্দিনের মতো জঘন্য মাদক ব্যবসায়ীদেরকে গ্রেপ্তার পূর্বক ক্রস ফায়ারের আওতায় নিয়ে আসার জন্য র‌্যাব ৭ কক্সবাজারের হস্তক্ষেপ কামনা করছি। উখিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আবুল খায়ের ইয়াবা ও মাদক ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত রয়েছে বলে তিনি জানান।

Share this post

scroll to top