উখিয়ায় ধর্ষনসহ ডজন মামলার পলাতক আসামী কানা বেলাল গ্রেপ্তার

images.jpg

উখিয়া ক্রাইম নিউজ ডেস্ক::

কক্সবাজারের উখিয়ার পশ্চিম দরগাহবিল গ্রামের তথা উখিয়ার ত্রাস সৃষ্টিকারী ধর্ষন মামলাসহ বিএনপি নেতা বেলাল আহম্মদ ওরপে বেলাল বাহিনীর প্রধান কানা বেলালকে উখিয়া থানা পুলিশের সহকারী উপ- পরিদর্শক দিদারুল আলমের নেতৃত্বে একদল পুলিশ সোমবার দুপুরে পশ্চিম দরগাহবিল গ্রামের একটি মুদির দোকানে অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হয়েছে। পুলিশ জানিয়েছে তার বিরুদ্ধে থানায় ধর্ষন, অপহরন, ছিনতাই ত্রাস সৃষ্টিকারী ও ডজন মামলা রয়েছে। সে উপজেলার পশ্চিম দরগাহবিল গ্রামের আলী হোসনের ছেলে।
পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, ২০১৫ সালে সন্ধায় দরগাহবিল এলাকার কলেজ পড়–য়া ছাত্রী আসমাউল হুসনা নারগিস (১৭) কে বেলাল বাহিনীর প্রধান বেলালের নেতৃত্বে সশস্ত্র একদল সন্ত্রাসী বাড়ীর দরজা ভাঙ্গিয়া বাড়ীতে ঢুকে পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের অস্ত্রের মূখে জিম্মি করে বাড়ীর স্বর্ণলংকার, নগদ টাকাসহ অপহরন করিয়া টেকনাফের এক ইয়াবা ব্যবসায়ী বশির আহম্মদের ছেলে মোঃ আব্দুল্লার ঘরে জিম্মি করে শারিরীরিক ও মানষিক ভাবে নির্যাতন করিয়া ধর্ষন করিয়াছিল। এব্যাপারে উখিয়া থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা দায়ের করা হয়। যার নং- ৪০/২০১৬ইং। ওই নির্যাতিত স্কুল ছাত্রী একই গ্রামের দুবাই প্রবাসী নাজির হোসনের মেয়ে বলে জানা গেছে। এছাড়াও তার বাহিনী একই এলাকার ফাতেমার বাড়ীতে লুটপাট চালিয়ে ফাতেমাকে ধর্ষনের চেষ্টা চালায়। এব্যাপারে উখিয়া থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা রুজু করা হয়। যার নং- ১০/১৩। ২০০৭ সালে গরু ব্যবসায়ীকে মারধর করে টাকা ছিনতাইয়ের অভিযোগে ও থানায় মামলা রয়েছে। ২০১৬ সালে মোঃ শফির জমি জোরপূর্বক দখল করার অপরাধে বেলাল বাহিনীর অপরাপর সদস্যদের বিরুদ্ধে উখিয়া থানার মামলা নং- ৪/১৬। ২০০১ সালে তৎকালিন কলেজ ছাত্র নেতা মোঃ শাহজানকে মারধর করার অপরাধে উখিয়া থানায় মামলা নং-১২/২০০১। তাছাড়াও স্বাক্ষর জালিয়াতীর অপরাধে এসটি ৭১৬/১৫ ইং মামলা অতিরিক্তি জেলা দায়রা জজ আদালতে বিচারাধীন রয়েছে। কক্সবাজার জেলার টেকনাফে রয়েছে বেলাল বাহিনীর প্রধান বেলালের ভগ্নিপতি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রনালয়ের তালিকাভুক্ত শীর্ষ ইয়াবা ব্যবসায়ী মোঃ আব্দুল্লাহ। সে দীর্ঘ কয়েক বছর যাবৎ বাহিনীর প্রধান বেলালসহ অন্যান্য সন্ত্রাসীদের ব্যবহার করিয়া টেকনাফ থেকে নাইক্ষ্যংছড়ি ও উখিয়া থানার প্রত্যান্ত অঞ্চলের চোরাই পদ ব্যবহার করে ইয়াবা পাচার করে আসিতেছে। সে নির্বাচনকালীন সময়ে বিএনপির পক্ষ হয়ে ভাড়াঠিয়া হিসাবে খুন জখম করার অপরাধও রয়েছে তার বিরুদ্ধে। এলাকাবাসীরা জানান, তার নিকট অবৈধ ভারী অস্ত্র ও দেশীয় তৈরি ধারালো অস্ত্র রয়েছে। তারা আরো জানান, গ্রেপ্তারকৃত বেলাল তার বাহিনী নিয়ে প্রকাশ্যে এলাকায় সব সময় মহড়া দিতে থাকে এবং এলাকার লোকজনকে ভয়ভীতি প্রদর্শন করে থাকে। তার গ্রেপ্তারের খবরে এলাকায় মানুষেরা স্বস্তির নিঃশ^াস পেয়ে মিষ্টি বিতরন করেছে। বিএনপি সূত্রে জানা গেছে, গ্রেপ্তারকৃত বেলাল রাজাপালং ইউনিয়নের ৮ নং ওয়ার্ড বিএনপির সভাপতি।

Share this post

scroll to top