সংবাদ শিরোনাম
উখিয়ার জামতলী শফি উল্লাহ কাটা ক্যাম্প বাজারের খাস কালেকশনের নামে…থাইংখালীতে সরওয়ারের নেতৃত্বে সরকারি বনভুমিতে নির্মিত হচ্ছে স্থাপনামানবপাচারকারী জালাল জুতার মালা ও কোদাল দিয়ে মাথার চুল উপড়িয়ে…থাইংখালীতে সরওয়ারের নেতৃত্বে সরকারি বনভুমিতে নির্মিত হচ্ছে স্থাপনাকক্সবাজারে গণবদলির পর নতুন ওসি-এসআইসহ ৩৭ জনকে পোস্টিংকক্সবাজার থেকে শীর্ষ কর্মকর্তাসহ পুলিশের ১৩৪৭ সদস্য বদলিরোহিঙ্গাদের বাংলাদেশী জাতীয় পত্র বানিয়ে দিচ্ছে একটি সিন্ডিকেট, জড়িত শিক্ষক…নাফ নদীতে গোলাগুলি করে ৫০ হাজার ইয়াবা উদ্ধারউখিয়ায় ইয়াবাসহ দুই রোহিঙ্গা আটকউখিয়ার চাঞ্চল্যকর ফোর মার্ডার ঘটনার এক বছর

উখিয়ার সর্বত্রে পুলিশ পরিচয়ে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে কে এ ইউছুপ?

pic-1-4.jpg

উখিয়া ক্রাইম নিউজ ডেস্ক::

উখিয়ার পার্শ্বভর্তি নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার ঘুমধুম ইউনিয়নের তুমব্রু উত্তর পাড়া গ্রামের বদিউর রহমানের ছেলে হতদরিদ্র পরিবারে বেড়ে উঠা ইউছুপ সীমান্ত এলাকার মাদক ব্যবসায়ীদের সাথে সিন্ডিকেট গড়ে তোলে মিয়ানমার ভিত্তিক ইয়াবা আরদদারদের নিকট থেকে মাদক এদেশে নিয়ে এসে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে হাড়িহাড়ি ইয়াবা পাচার করে রাতারাতি লাখ লাখ টাকার মালিক বনে যায়। তার অবাদে মাদক বানিজ্যের খবর ঘুমধুম পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ ইমন চৌধুরী ও তৎকালিন এস আই এরশাদুল হক নিশ্চিত হওয়ার পর তার মাদক ব্যবসা বন্ধ করে দেয় বলে জানা যায়,
এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, ইউছুপ মাদক ব্যবসায়ী থেকে সাদু সেজে দীর্ঘ দিন ধরে ঘুমধুম পুলিশের সাথে সময় কাটানোর পাশাপাশি চতুর ইউছুপ উখিয়া থানা পুলিশের সাথে গভীর সম্পর্ক গড়ে তোলে চাঁদাবাজীর মিশন নিয়ে নেমে পড়েন মাঠে। এর পর থেকে নিজেই পুলিশ পরিচয় দিয়ে রোহিঙ্গা ক্যাম্পের সাধার রোহিঙ্গা থেকে শুরু করে এলাকার নিরহ লোকজনকে মিথ্যা মামলায় জড়িয়ে দেওয়ার ভয়ভীতি প্রদর্শন করে তাদের নিকট থেকে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে বলেও জানা গেছে। ভুক্তভোগী আমির হামজা জানান, ইউছুপ পুলিশ অফিসার পরিচয় দিয়ে আমাদের নিকট থেকে প্রায় সময় চাঁদা দাবী করে আসতো, তার দাবীকৃত চাঁদা না দিলে বিভিন্ন মিথ্যা মামলার ভয়ভীতি প্রদর্শন করতো। সূত্র মতে, সম্প্রতি উক্ত ইউছুপের মিশনে গিয়ে ও রোহিঙ্গা ক্যাম্পে বেপরোয়া চাঁদাবাজীর দায়ে উখিয়া থানার এক পুলিশ অফিসার ক্লোজ হওয়ার মতো ঘটনাও ঘটেছে। স্থানীয় সচেতন মহলের দাবী, অচিরেই ইউছুপকে গ্রেপ্তার পূর্বক কঠিন শাস্তির আওতায় নিয়ে আসার জন্য জেলা পুলিশ সুপার ও র‌্যাব ৭ কক্সবাজারের হস্তক্ষেপ কামনা করছি। এ ব্যাপারে উখিয়ার থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আবুল খায়ের দালাল ইউছুপকে তদন্তপূর্বক শিঘ্রই আইনের আওতায় নিয়ে আসা হবে বলে তিনি জানান।

Share this post

scroll to top