উখিয়ায় পাহাড় চাপায় নিহত ১- বসতবাড়ী বিলীন

1.jpg

মাহমুদুল হক বাবুল উখিয়া ::

উখিয়ার হলদিয়াপালং ইউনিয়নের পাতাবাড়ী বালুছড়া কাটালিয়া এলাকায় প্রতিদিনের ন্যায় পাহাড় কেটে ডাম্পার যোগে মাটি পাচার করার সময় পাহাড় সংলগ্ন বসতবাড়ীর দেয়াল ভেঙ্গে এক শ্রমিক নিহত হয়েছে। সোমবার সকাল ৮ টার দিকে এ ঘটনাটি ঘটেছে।
সরজমিন ঘটনাস্থল ও এলাকার লোকজনের সাথে কথা বলে জানা যায়, ইউনিয়নের পাতাবাড়ী গ্রামের সাবেক ইউপি সদস্য হাজী শাহাব মিয়ার ছেলে এলাকার চিহ্নিত ভুমিদস্যু নুর মোহাম্মদ, পূর্ব হলদিয়া লম্বাবিল গ্রামের মৃত কবির আহম্মদের দুই ছেলে বদি আলম ও খুরশেদ আলমের নেতৃত্বে স্থানীয় বনবিট কর্মকর্তা মুহি উদ্দিনকে মোটা অংকের টাকায় ম্যানেজ করে দীর্ঘ দিন ধরে পাহাড় কেটে মাটি বানিজ্যর উৎসব চালিয়ে আসছে। সোমবার সকালে কাটালিয়া এলাকায় পাহাড় কাটার সময় হামিদুল হকের বসতবাড়ীর দেয়াল ভেঙ্গে মাটি চাপা পড়ে ইউনিয়নের জাইল্যাপাড়া গ্রামের হাছিম আলীর ছেলে মোঃ হাসান আলী (২২) নামের এক শ্রমিক গুরুতর আহত হয়। এসময় পাহাড় খেকোরা আহতকে উদ্ধার করে দ্রুত কক্সবাজার সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত্যু ঘোষনা করেন বলে জানা যায়।
ভুক্তভোগী ছৈয়দা বেগম জানান, নুর মোহাম্মদ, বদি আলম ও খুরশেদ আলম আমি ও আমার পরিবারকে মারধরের ভয়ভীতি প্রদর্শন করে পাহাড় কেটে ডাম্পার যোগে মাটি পাচার করে আমার বসতবাড়ীটি ভেঙ্গে বিলীন করে প্রায় লক্ষাধিক টাকার ক্ষয়ক্ষতি করেছে। তিনি আরো বলেন, তাদের বিরুদ্ধে থানা বা আদালতের আশ্রয় নিলে তাদেরকে শ্রমিক হত্যারমত ঘটনা ঘটিয়ে হত্যা করা হবে মর্মে হুমকি ধমকি দিয়ে থাকে। অভিযুক্ত বিট কর্মকর্তা মুহি উদ্দিন পাহাড় কাটার কথা স্বীকার করলেও টাকা নেওয়ার কথা তিনি অস্বীকার করেন। পাহাড় খেকো নুর মোহাম্মদ শ্রমিক নিহতের সত্যতা স্বীকার করে বলেন, পাহাড় কাটার বিষয়ে লিখে লাভ নেই, সব জায়গায় টাকা দিয়ে পাহাড় কাটা হচ্ছে। ভাই টাকা থাকলে একটা লাশ কেন, দশটা লাশ পড়লেও সমস্যা নেই।
স্থানীয় সচেতন মহলরা বলেন, এভাবে আর কত লাশ পড়লে সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের ঘুম ভাঙ্গবে এবং পাহাড় কাটা বন্ধ হবে? উখিয়া রেঞ্জ কর্মকর্তা তারিকুর রহমান জানান, পাহাড় কাটার সাথে জড়িতদের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত আছে এবং থাকবে। উখিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আবুল খায়ের ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেন এবং পাহাড় কাটার সাথে জড়িতদের বিরুদ্ধে তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে তিনি জানান।

Share this post

scroll to top