সংবাদ শিরোনাম
উখিয়ায় বন বিভাগের অভিযানে অবৈধ বালি উত্তোলনের সরঞ্জমাধি উদ্ধারউখিয়ার ডেইলপাড়া করইবনিয়া এলাকা ইয়াবার জোওয়ারে ভাসছেউখিয়ার শীর্ষ ইয়াবা ডন মীর আহম্মদ অধরাহাজীর পাড়ার শীর্ষ ইয়াবা কারবারী মীর আহম্মদকে ধরিয়ে দিনউখিয়ার নুরুল আলমকে গ্রেপ্তারে বেরিয়ে আসবে ইয়াবা ও অস্ত্রসহ গুরুত্বপূর্ণ…থাইংখালী বিট কর্মকর্তার বিরুদ্ধে পাহাড়সম দুর্নীতির অভিযোগউখিয়ায় বন বিভাগের অভিযানে মাটিবর্তী ডাম্পার গাড়ী আটকজালিয়া পালংয়ে ছিনতাইকারীদের হাতে নিঃশ্ব হলেন খামার ব্যবসায়ী – আহত…উখিয়ার শীর্ষ ইয়াবা কারবারী আলী আকবর বিদেশী মদসহ আটকউখিয়ার মুছারখোলা বিট কর্মকর্তা আবছারের নেতৃত্বে পাহাড় কাটা ও বালি…

রোহিঙ্গাদের বর্বরোচিত হামলায় আহত ১

6.jpg

উখিয়া ক্রাইম নিউজ ডেস্ক::

প্রায় ৮ লক্ষাধিক রোহিঙ্গার অস্থায়ী বসবাস উখিয়ার বিভিন্ন আশ্রয় শিবিরে চলমান নৈরাজ্যকর পরিবেশ স্থানীয় আড়াই লক্ষাধিক মানুষকে ভাবিয়ে তুলেছে। তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে অপহরন, খুন, ঘুম, গ্রামবাসীদের উপর হামলা, মারধর, স্থানীয়দের দীর্ঘ দিনের ভিটে মাটি দখল ক্যাম্পে মাদক বিক্রিসহ আশ্রিতা রোহিঙ্গাদের এমন অস্বাভাবিক আচরনে ক্ষুদ্দ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছে স্থানীয় গ্রামবাসী ও বিভিন্ন শ্রেনি পেশার লোকজন।
সরজমিন ময়নারঘোনা ক্যাম্প ঘুরে বেশ কয়েকজন রোহিঙ্গা ও স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা যায়। ঘোনার পাড়া গ্রামের হত দরিদ্র স্থানীয় বাসিন্দা মৃত জাফর আলমের ছেলে আবুল কালাম (৩৫) শুক্রবার সন্ধায় তার মেয়ের বিয়ের জন্য গরু ক্রয়ের বাকি টাকা পরিশোধ করতে যাওয়ার সময় ময়নারঘোনা ক্যাম্প ২/২ তে পৌছলে একদল অস্ত্রধারী রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীরা গতিরোধ করে তাকে বেদড়ক মারধর পূর্বক গুরুতর জখম করে ক্ষান্ত না হয়ে ফের তার পকেটে থাকা ৩৬ হাজার টাকা লুটপাট করে নিয়ে যায়। এসময় পাশর্^বর্তী লোকজন অস্ত্রধারী রোহিঙ্গাদের কবল থেকে মুমুর্ষ অবস্থায় আবুল কালামকে উদ্ধার করে উখিয়া হাসপাতালে ভর্তি করেন। উক্ত হামলা ও লুটপাটের ঘটনায় স্থানীয় ও রোহিঙ্গাদের বিরাজ করছে টানটান উত্তেজনা। স্থানীয় সচেতন মহলরা বলেন, রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীরা স্থানীয় লোকজনের উপর হামলা, লুটপাট, অত্যাচার ও নির্যাতনেরমত এধরনের অপরাধমুলক কর্মকান্ড অব্যাহত থাকলে ভবিষ্যতে আইনশৃংখলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রন করা কঠিন হয়ে দাড়াবে। তাই অতি শিঘ্রই তদন্তপূর্বক রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীদের তালিকা তৈরি করে আইনের আওতায় নিয়ে আসার জন্য জেলা পুলিশ সুপার ও র‌্যাব ৭ কক্সবাজারের হস্তক্ষেপ কামনা করছি। উখিয়া থানার ওসি মোঃ আবুল খায়ের জানান, তদন্তপূর্বক হামলা ও লুটপাটের সাথে জড়িত রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Share this post

scroll to top