ঘুমধুমে শীর্ষ ইয়াবা কারবারী নুর হোসেন গ্রেপ্তার আতংক মাথায় নিয়ে ঘুরছে বনে জঙ্গলে

pic-a.jpg

উখিয়া ক্রাইম নিউজ ডেস্ক::

উখিয়ার পার্শ্বভর্তি নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার ঘুমধুম ইউনিয়নের জলপাইতলী সীমান্তের নজির আহম্মদের ছেলে এপার ওপারের শীর্ষ ইয়াবা গডফাদার ও আন্ডার গ্রাউন্ডে থাকা নুর হোসেন প্রকাশ রম্বা নুরু গ্রেপ্তার আতংক মাথায় নিয়ে ঘুরছে বনে জঙ্গলে বলে অভিযোগ উঠেছে। গত ২৮ ফেব্রুয়ারী ঘুমধুম ইউনিয়নের আমতলীর ছড়া ব্রীজ সংলগ্ন এলাকায় ঘুমধুম পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের এসআই এনামুল হকের নেতৃত্বে একদল পুলিশ গোপন সংবাদের ভিত্তিতে একটি টমটম গাড়ী তল্লাশি চালিয়ে ১০ হাজার পিস ইয়াবা উদ্ধার করে। ওই সময় পুলিশি উপস্থিতি টের পেয়ে সুচতুর ইয়াবা নুর কৌশলে গাড়ী থেকে লাপিয়ে অল্পের জন্য গ্রেপ্তারের কবল থেকে রক্ষা পায় বলে প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে।
এব্যাপারে এসআই এনামুল হক বাদী হয়ে ইয়াবা নুরু (৩২) ও টমটম চালক রেজু আমতলী গ্রামের ইউছুপ আলীর ছেলে রফিক উদ্দিন (২৭) কে আসামী করে মাদক দ্রব্য আইনের সংশ্লিষ্ট ধারায় নাইক্ষ্যংছড়ি থানায় একটি মামলা রুজু করা হয়েছে বলে বিষয়টি নিশ্চিত করে ঘুমধুম তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ দেলোয়ার হোসেন।
প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, সীমান্তের শীর্ষ ইয়াবা কারবারী নুরু সিএনজি চালক থেকে ইয়বা ব্যবসায় জড়িয়ে আজ শূণ্যে থেকে কোটিপতি। সে উক্ত ইয়াবার কালো টাকার পাহাড়ের গরমে এলাকার সাধারন নীরহ লোকজনের উপর চালিয়ে যাচ্ছে চরম অত্যাচার ও নির্যাতন। শুধু তাই নয়, বিভিন্ন স্থানে শতাধিক গডফাদারের নেতৃত্বে পুরো ঘুমধুম ও উখিয়া সীমান্তের অন্তত ৩০ টি সিন্ডিকেট মোটা দাগের ইয়াবা লেনদেন ও পাচার কাজে লিপ্ত রয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।
সচেতন অভিভাবকদের অভিমত, বর্তমান ভয়াবহ জঙ্গী ও সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের সাথে যেসব কিশোর, যুবক জড়িয়ে পড়েছে, তাদের একটি অংশ মাদকাসক্ত ও মাদক পাচারের সাথে কোন না কোনভাবে সম্পৃক্ত রয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। তাদের মতে, কারা ইয়াবা পাচার করে বিপুল বিত্ত বৈভবের মালিক হয়েছে, তাদের সম্পর্কে আইন শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনী, বিশেষ করে র‌্যাব, গোয়েন্দা সংস্থা, জাতীয় রাজস্ব বোর্ড, দুর্নীতি দমন কমিশন সহ সমাজের ৃস্থানীয় নেতৃবৃন্দের সমন্বিত প্রচেষ্টায় বা নজরদারির দ্রুত ব্যবস্থা না নিলে, আগামী প্রজন্ম খুবই অন্ধকারাচ্ছন্ন হয়ে পড়বে।
ঘুমধুম পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ দেলোয়ার হোসেন বলেন, মাদক কারবারী নুর হোসেনকে ধরতে অভিযান অব্যাহত রয়েছে। এবং তাকে অতি শিঘ্রই গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় নিয়ে আসা হবে বলে তিনি জানান।

Share this post

scroll to top