উখিয়ার মাদারবনিয়ায় মাদকসেবীদের হামলায় আহত ১

pic-1-1.jpg

উখিয়া ক্রাইম নিউজ ডেস্ক::

উখিয়ার জালিয়াপালং ইউনিয়নের মাদারবনিয়া চাকমা পাড়া এলাকায় একদল মাদকসেবী উপজাতি সন্ত্রাসীদের বর্বরুচিত হামলায় এক গাড়ী চালক গুরুতর আহত হয়েছে। শুক্রবার দুপুর ২ টার দিকে এ হামলার ঘটনাটি ঘটেছে।
থানায় দায়েরকৃত এজাহার সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার জালিয়াপালং ইউনিয়নের মাদারবনিয়া গ্রামের খলিলুর রহমানের ছেলে গাড়ী চালক আবু ছৈয়দ (২৫) প্রতিদিনের ন্যায় জীবিকা নির্বাহ করার জন্য তার নিজস্ব চারপোকা গাড়ী নিয়ে মাদারবনিয়া এলাকা থেকে বিবাহ অনুষ্টানের ফার্ণিচারের ভাড়া নিয়ে শামলাপুর যাওয়ার পথে মাদারবনিয়া এনজিও কটেজের পাশে পৌছলে চালকের মোবাইলে ফোন আসিলে গাড়ী বন্ধ করে মুঠোফোনে কথা বলার সময় পাশর্^বর্তী দোকানে মাদারবনিয়া চাকমা পাড়া এলাকার চোইংচু চাকমার ছেলে এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসী ও মাদকসেবী মংক্যাচিং (২১) এর নেতৃত্বে চৈফু অং চাকমার ছেলে ছমেরাছা চাকমা (২৭), চোইংচু চাকমার দুই ছেলে পুলুঅউ চাকমা (২৫), লাতু চাকমা (২৩),কেজাই অং চাকমার দুই ছেলে চোইংচু চাকমা (৪৫), সুমন চাকমা (২৭),চাইঙ্গ চাকমার ছেলে উখাইমং চাকমা (২৩) সহ একদল মাদকসেবী চাকমারা গাড়ী চালক আবু ছৈয়দ তাদের মাদক সেবনের খবর পুলিশকে দিচ্ছে মর্মে সন্দেহ করে গতিরোধ করে তাকে লাঠিসোটা ও ধারালো অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে এলোপাতাড়ি হামলা চালিয়ে গুরুতর জখম করে। তাকে হামলা চালিয়ে মুর্মশ অবস্থায় তার পকেটে থাকা ১৪ হাজার টাকাও ছিনিয়ে নেয় বলে আহতের বড় ভাই আবু ছিদ্দিক বিষয়টি প্রতিবেদককে নিশ্চিত করেছেন।
এসময় আহতের শোর চিৎকারে রাস্তার পাশে থাকা লোকজন এগিয়ে এসে অস্ত্রধারী মাদকসেবী চাকমা উপজাতিদের কবল থেকে আহতকে উদ্ধার করে কক্সবাজার সদর হাসপালে ভর্তি করেন। কর্তব্যরত চিকিৎসক আহত শংকামুক্ত নয় বলে জানান।
মামলার বাদী আবু ছিদ্দিক জানান, উল্লেখিত মাদকসেবী চাকমারা দিবারাত্রি মাদক সেবন ও বিক্রির ফলে মাদারবনিয়া এলাকাটি বর্তমানে মাদকের হাটে পরিনত হয়েছে। অতিশিঘ্রই উক্ত মাদক সেবন ও বেছাবিক্রি বন্ধ করা না হলে এলাকার উঠতি বয়সী ছাত্র ও যুবসমাজকে মাদকের ভয়াল থাবা থেকে রক্ষা করা কঠিন হয়ে পড়বে। তাই উক্ত মাদকের হাট বন্ধে ও গাড়ী চালক আবু ছৈয়দের হামলার সাথে জড়িতদের দ্রুত গ্রেপ্তার পূর্বক কঠিন শাস্তির আওতায় নিয়ে আসার জন্য জেলা পুলিশ সুপার ও উখিয়া থানার অফিসার ইনচার্জের হস্তক্ষেপ কামনা করছি। উক্ত হামলার ঘটনায় আহতের বড় ভাই আবু ছিদ্দিক বাদী হয়ে ৭ জনকে প্রধান আসামী করে উখিয়া থানায় একটি এজাহার দায়ের করেছেন বলে তিনি জানিয়েছেন।
ইনানী পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ সিদ্ধার্থ সাহা ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেন এবং তিনি সদর হাসপাতালে হামলায় আহতকে দেখতে গিয়েছেন বলে তিনি জানান।

Share this post

scroll to top