উখিয়ার অর্ধশতাধিক স্পটে বালি উত্তোলন চলছে

pic-ukhiya-a-1.jpg

উখিয়া ক্রাইম নিউজ ডেস্ক::

কক্সবাজারের উখিয়ায় প্রায় অর্ধশতাধিক স্পট থেকে দিনরাত অবৈধ ভাবে বালি উত্তোলন চলছে। গাড়ী প্রতি ৩শ টাকার বালি তিন হাজার থেকে চার হাজার টাকায় বিক্রি হওয়ার সুবাদে বালি লুটপাটের মহোৎসব চলছে। এক শ্রেনীর পেশাদার বালি উত্তোলনকারী সিন্ডিকেট প্রশাসন থেকে শুরু করে বিভিন্ন মহলকে ম্যানেজ করে উখিয়ার প্রায় অর্ধশতাধিক স্পট থেকে নির্বিচারে অবৈধ উপায়ে বালি উত্তোলনের ফলে বন ও পরিবেশ ধ্বংসের পাশাপাশি সাধারন মানুষের চলাচলে অনুপযোগীসহ জনজীবন অতিষ্ট হয়ে উঠেছে বলে দাবী করছেন ভুক্তভোগীরা।
সরজমিন ফলিয়া পাড়ার জারাইলতলী, মধুরছড়া, হলিণমারা, আমিন পাড়া, হরিণমারা বাগানের পাহাড়, বাঘঘোনা, তুতুরবিল, বালুখালী খাল, মনখালীর চিকুনছুরি খাল, ছোটখাল, বড়খাল, রেজুর মোহনা, মরিচ্যা খাল, . রাজাপালং, হিজোলীয়া, গয়ালমারা খালের ১৫টি স্পটসহ ৫০টিরও অধিক স্থান থেকে একটি শক্তিশালী সিন্ডিকেট প্রতিনিয়ত বালি উত্তোলন করে হাতিয়ে নিচ্ছে সরকারি লাখ লাখ টাকার রাজস্ব। মধুরছড়া এলাকার আবু ছৈয়দ (৪৫) এর অভিযোগের ভিত্তিতে ঘটনাস্থল ঘুরে দেখা যায়, বাড়ী সংলগ্ন পাহাড়ের নিচে গর্ত করে সেখানে ডেজার মেশিন দিয়ে পানি উত্তোলনপূর্বক গর্ত পরিপূর্ণ করা হয়েছে। ফলে বালির পাহাড় ক্রমশক ভেঙ্গে পড়ছে।
অপর দিকে ড্রেজার মেশিন দিয়ে বালি উত্তোলন করে পাচার করা হচ্ছে। অব্যাহত ভাঙ্গন ও বালি উত্তোলনের ফলে সরকারি বনভুমির পাহাড় ভেঙ্গে পড়ার পাশাপাশি সামাজিক বনায়নের গাছপালা বিলীন হয়ে একাকার হলেও মাসিক ১০ থেকে ২০ হাজার টাকার বিনিময়ে বন কর্মকর্তারা রয়েছে নিরব দর্শকের ভুমিকায়। উক্ত বালি সিন্ডিকেটের অন্যতম গডফাদার মধুরছড়া গ্রামের শামশুল আলমের ছেলে বুজুরুজ, হাবিবুর রহমান, মৃত আবুল বলির ছেলে নুর মোহাম্মদ বলি, গফুর ড্রাইভারের ছেলে ইউছুপ, ছব্বির আহম্মদ, হরিণমারা এলাকার শাহজান মেম্বার, ছৈয়দ করিম, আকতার, পিটিং বদু, খালকাছা পাড়া গ্রামের মোস্তাফিজুর রহমান, হিজোলিয়ার হেলাল উদ্দিন, নুর মোহাম্মদ, রুমু চৌধুরী, জামি চৌধুরীসহ আরো অনেকেই। ভারী যানবাহন দিয়ে বালি পাচারের ফলে গ্রামীন সড়ক ভেঙ্গে ক্ষত বিক্ষত হয়ে চলাচলের অনুপযোগি হওয়ার কারনে গ্রামবাসীরা প্রশাসনের ধারারে ধারে ঘুরছে।
ইজারাদার মোঃ শফি বলেন, উল্লেখিত বালি গডফাদাররা দোছড়ী খালের ইজারার পাস বই কৌশলে ছাপাখানা থেকে বের করে তার দস্তখত জাল করে বিভিন্ন ক্যাম্পে অবৈধ ভাবে বালি পাচার করে হাতিয়ে নিচ্ছে লাখ লাখ টাকা। এবাপারে তিনি উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও সহকারী কমিশনার ভুমিকে অবহিত করেছেন বলেও তিনি জানান।

সহকারী কমিশনার ভুমি মোঃ আমিমুল এহসান খান জানান, তিনি এ পর্যন্ত বেশ কয়েকটি স্থানে ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে অভিযান চালিয়ে যা দেখেছেন তাতে সরকারি রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে লাখ লাখ টাকার বালি লুটপাটের সত্যতা পেয়েছেন। এবং প্রায় অর্ধশতাধিক লোকজনকে অবৈধ বালি উত্তোলনের দায়ে জরিমানা করেছেন। উদ্ধার করেছেন বালি উত্তোলনের সরঞ্জমাদি। বন বিভাগের পাহাড় কেটে বালি উত্তোলন পূর্বক পাচারের ব্যাপারে জানতে চাওয়া হলে উখিয়া বন রেঞ্জ কর্মকর্তা তারিকুর রহমান জানান, লোকবল সংকটের কারনে তারা ইচ্ছা থাকা সত্বেও অবৈধ বালি উত্তোলনকারীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে পারছেন না। তবে প্রত্যক্ষদর্শী বিভিন্ন শ্রেনী পেশার মানুষ জানিয়েছেন, বন ভুমির পাহাড় কেটে বালি ও মাটি পাচারের ক্ষেত্রে বন বিভাগের বিট কর্মকর্তারা জড়িত রয়েছে।

Share this post

scroll to top