উখিয়ায় তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে হামলায় আহত – ৬

oo.jpg

উখিয়া ক্রাইম নিউজ ডেস্ক::

উখিয়ার হলদিয়াপালংয়ে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে হামলা চালিয়ে ৬জনকে গুরুতর আহত করেছে। উক্ত হামলার ঘটনায় এলাকায় চরম আতংক বিরাজ করছে বলে জানা গেছে। ৩১ ডিসেম্বর এ হামলার ঘটনাটি ঘটেছে।

থানায় দায়েরকৃত এজাহার ও এলাকাবাসী সূত্রমতে, উপজেলার মধ্যম হলদিয়া ঝুলার পাড়া গ্রামের মৃত মির আহম্মদের ছেলে মোকতার আহম্মদের সাথে একই এলাকার আজিজুল হক বাপ্পির সাথে দীর্ঘ দিনের বিরোধ চলে আসছিল। তারই সূত্রধরে ৩১ ডিসেম্বর মোকতার আহম্মদের স্ত্রী জাহানারা বেগম (৩৫) নামাজ পড়ার সময় শিশু সন্তান কন্না করার ঘটনাকে কেন্দ্র করে ক্ষিপ্ত হয়ে আজিজুল হক বাপ্পি নেতৃত্বে তার শশুর বাড়ী পশ্চিম পাগলীরবিল গ্রামের মৃত আব্দুল্লাহ ফকিরের ছেলে ডাকাতি, অস্ত্র, ধর্ষন মামলাসহ ডজনখানিক মামলার অন্যতম আসামী তুইজ্যা ডাকাত, সোহেল, খুইশ্যা ডাকাত, সাদ্দাম হোসেন,রুবেলসহ শীর্ষরা ধারালো অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে ৩১ ডিসেম্বর বিকাল ৪টার দিকে মোকতার আহম্মদের ঘরবাড়ী ভাংচুর ও লুটপাট চালিয়ে ক্ষান্ত না হয়ে ফের মোকতার আহম্মদের স্ত্রী জাহানারা বেগম (৩৫), রোকসানা আকতার(২৮), ইয়াছমিন আকতার (২২), দিলোয়ারা বেগম(৪৯), জান্নাত আরা বেগম(১২),মোকতার মিয়া( ৫৭),ইসমাঈল(১৮), প্রায় ৭জনকে হামলা চালিয়ে গুরুতর আহত করেছে বলে ভুক্তভোগী জাহানারা বেগম প্রতিবেদককে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
এসময় আহতদের শোর চিৎকারে লোকজন এগিয়ে এসে অস্ত্রধারীদের কবল থেকে আহতদের উদ্ধার করে উখিয়া হাসপাতালে ভর্তি করেন। কর্তব্যরত চিকিৎসক আহতরা এখনো শংকামুক্ত নয় বলে জানিয়েছেন। উক্ত ঘটনাকে কেন্দ্র করে জাহানারা বেগম বাদী হয়ে ১১জনকে আসামী করে উখিয়া থানায় একটি লিখিত এজাহার দায়ের করেন বলে তিনি জানান। তিনি আরো জানান, উল্লেখিত অস্ত্রধারীদের বিরুদ্ধে থানা বা আদালতের আশ্রয় নিলে তাদেরকে স্ব-পরিবারে হত্যা করে লাশ ঘুম করা হবে মর্মে হুমকি ধমকি দিচ্ছে। তাই তারা তাদের জীবনের নিরাপত্তার জন্য জেলা পুলিশ সুপারের হস্তক্ষেপ কামনা করেন।
উখিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ আহম্মদ সনজুর মোরশেদ তদন্তপূর্বক হামলার সাথে জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে তিনি জানান।

Share this post

scroll to top