উখিয়ার পাতাবাড়ীতে পরকীয়া প্রেমের ঘটনায় সর্বহারা আলীর পরিবার

pic-1.jpg

মোঃ শহিদ উখিয়া::

উখিয়ার হলদিয়া পালং ইউনিয়নের পাতাবাড়ীতে স্ত্রী পরকীয়া প্রেমের ঘটনার জের ধরে সর্বশান্ত হয়ে পথে বসার উপক্রম দেখা দিয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।
সরজমিন ঘটনাস্থল ও এলাকাবাসীর সাথে কথা বলে জানা গেছে, উখিয়ার পার্শ্ববর্তী নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার ঘুমধুম ইউনিয়নের মনজয় পাড়া গ্রামের মৃত আব্দুস শুক্ররের ছেলে আব্দুল হাকিম বিভিন্ন প্রলোভন দেখিয়ে উখিয়ার পূর্বহলদিয়াপালং ইউনিয়নের লম্বাবিল গ্রামের হাজী শাহাব মিয়ার ছেলে আলী আহম্মদ দীর্ঘ দিন বাড়ীতে না থাকার সুযোগে তার স্ত্রী ৩ সন্তানের জননী জুলেখা বেগম এর সাথে অনৈতিক কর্মকান্ডে জড়িয়ে পড়ে বলে জানা গেছে।
উক্ত অনৈতিক কর্মকান্ডে লিপ্ত থাকার ঘটনায় গত ১৪/১১/২০২০ ইং তারিখে স্থানীয় ও থানা পুলিশের সমন্বয়ে বৈঠকের মাধ্যমে ঘটনাটি প্রাথমিক ভাবে সমাধান হয় বলে প্রত্যক্ষদর্শী ও স্থানীয় সচেতন লোকজন প্রতিবেদককে জানিয়েছেন।
জুলেখা বেগমের বড় ভাই রজ্জাক উদ্দিন জানান, আমার ছোট বোন জুলেখা বেগমের স্বামী আলী আহম্মদ দীর্ঘদিন জেল হাজতে থাকার সময় বোনের পরিবারের সমস্ত বরণপোষন আমরা দিয়েছি। বোনকে লম্পট নুরুল হাকিমের সাথে মেলামেশা না করার জন্য বারবার বারন করার শর্তেও জুলেখা ওই লম্পট নুরুল হাকিমের সাথে অবৈধ মেলা মেশা চালিয়ে যাচ্ছিল।
ভুক্তভোগী আলী আহম্মদ কান্না জড়িত কন্ঠে জানান, আলফাস মোহাম্মদ বিজয়,ইশিতা আরমান জয়া,রিসিতা শিমরানসহ এক ছেলে ২ মেয়ে রয়েছে। শুক্রবার আমার ছোট ছোট ছেলে – মেয়েদেরকে বাড়ীতে রেখে স্ত্রী জুলেখা বেগম আমার ঘরে থাকা ৫ ভরি স্বর্ণলংকার নগদ ৫০ হাজার টাকা লুটপাট করে লম্পট নুরুল হাকিমের হাত ধরে পালিয়ে যায়। আজ ৪ দিন অতিবাহিত হলেও তার কোন সন্ধান আমরা এখনো পায়নি। উক্ত ঘটনাটি ভিন্নখ্যাাতে প্রবাহিত করার জন্য তালকে তিল বানিয়ে একটি গ্রুপ উল্টো আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা সাজানো মামলা দায়ের করার ণীল নকশা তৈরি করে যাচ্ছে। তাই আমি ঘটনাটি সঠিক ভাবে তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য জেলা পুলিশ সুপার ও উখিয়া থানার ওসির প্রতি অনুরোধ জানাচ্ছি।
এ ব্যাপারে উখিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ আহম্মদ সনজুর মোরশেদ তদন্তপূর্বক ঘটনার সাথে জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে তিনি জানান।

Share this post

scroll to top